শিরোনাম

সন্ত্রাসী হামলায় মৃত্যুশয্যায় সোহাগ

প্রিন্ট সংস্করণ॥নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) প্রতিনিধি  |  ০১:১৫, জানুয়ারি ১৩, ২০১৯

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে বাড়ির সীমানা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহত ঢাকার লালমাটিয়া রয়েল কেয়ার সার্জিকেল হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্চা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন নজরুল ইসলাম সোহাগের (২৪) ছয় দিনেও জ্ঞান না ফেরায় তার মৃত্যুর আশঙ্কায় পরিবারের সদস্যদের মাঝে উৎকন্ঠা বেড়েছে। গত সোমবার উপজেলার মৌকরা ইউনিয়নের মাঝিপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এসময় নজরুল ইসলাম সোহাগ ছাড়াও তার পরিবারের আরো ২ সদস্য আহত হয়েছে। তারা হলেন সোহাগের পিতা মফিজুল ইসলাম ও তার ভাই আমিনুল ইসলাম লিটন। সোহাগের পরিবার ও স্থানীয়রা জানায়, মফিজুল ইসলামের সাথে মাঝিপাড়া গ্রামের মৃত আসলাম মিয়ার ছেলে ভূমিদস্যু আবু তাহেরের বাড়ির সীমানা সংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে গত ১০ জানুয়ারি স্থানীয়ভাবে শালিস বৈঠকের কথা ছিল। কিন্তু গ্রাম্য শালিসকে উপেক্ষা করে ঘটনার দিন বিরোধীয় সীমানায় আবু তাহের ঘর নির্মাণ করতে গেলে মফিজুল ইসলামের ছেলে নজরুল ইসলাম সোহাগ বাধা দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আবু তাহের ও তার স্ত্রী লায়লা বেগম, ছেলে মহিউদ্দিন রাকীব, ভাগিনা শরাফতসহ ৮-১০ জনের একটি ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী বাহিনী দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র দিয়ে নজরুল ইসলাম সোহাগের ওপর হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করে। এ হামলায় সোহাগের মাথার খুলি ভেঙে মগজের ভেতর ঢুকে যায়। এ সময় তাকে উদ্ধার করতে এলে তার পিতা মফিজুল ইসলাম ও ভাই আমিনুল ইসলাম লিটনকেও পিটিয়ে আহত করে সন্ত্রাসীরা। আহত সোহাগকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় স্থাানীয়রা উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকায় রেফার্ড করে। পরে তাকে ঢাকার লালমাটিয়া রয়েল কেয়ার সার্জিকেল হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্চা কেন্দ্রে (আইসিইউ) ভর্তি করা হয়। ভূমিদস্যু আবু তাহেরের বিরুদ্ধে ওই গ্রামের হানিফ ও দেলোয়ার হোসেনের দুটি জমি জোরপূর্বক দখলে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। এসব ঘটনায় একাধিক মামলা চলমান রয়েছে।
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত