শিরোনাম
রায় লিখুন বাংলায়, যাতে মানুষ বোঝে : বিচারকদের প্রধানমন্ত্রী ‘পুরান ঢাকায় আর দাহ্য পদার্থের গোডাউন রাখতে দেব না’ গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে চকবাজারে আগুন : শিল্পমন্ত্রী 'সরকারের দায়িত্বহীনতায় বহু মানুষ অকারণে জীবন হারাচ্ছে' অগ্নিকাণ্ডে হতাহতের ঘটনায় রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক চকবাজারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন ‌'হতাহতদের পরিবারকে প্রয়োজনীয় সহায়তা দেয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর' চকবাজারে অগ্নিকাণ্ড : উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত, ৭০ জনের মৃত্যু ভাষা শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর গভীর শ্রদ্ধা ভুয়া প্রশ্নপত্র ফাঁস : থামছেই না বেপরোয়া চক্র

আধিপত্য বিস্তার নিয়ে ভাংচুর ও লুটপাট

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি  |  ১৯:২৪, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৮

ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার ইব্রাহিমপুর গ্রামে অধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মারধরের ঘটনার জের ধরে প্রতিপক্ষের বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার (০৬ ডিসেম্বর) সকালে এ ঘটনা ঘটে।

গ্রামবাসী জানায়, শৈলকুপার উমেদপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি সাব্দার হোসেন মোল্লা ও ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মিজানুর রহমান বাবুলের সমর্থকদের মধ্যে দীর্ঘদিন যাবত বিরোধ চলে আসছিল। বৃহস্পতিবার সকালে বাবুলের সর্মথকরা সাব্দার মোল্লার সমর্থক আমজেদ মোল্লাকে কুপিয়ে আহত করে। এরই জের ধরে সকাল থেকে দফায় দফায় সাব্দার মোল্লার সমর্থকরা ইব্রাহিমপুর গ্রামের বাবুলের সমর্থক বজলু মোল্লা, নলু মোল্লা, রাজু, বদরউদ্দিন, নিজাম উদ্দিনসহ অন্তত ১০ জনের বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাট করে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

পরবর্তীতে গ্রামে পুলিশ মোতায়েন করা হয়। তবে গ্রামের একপাশে পুলিশের উপস্থিতি থাকলেও অন্যপাশে চলে ভাংচুর ও লুটপাট। স্থানীয় মাতব্বর আবু বক্কার ওরফে বাক্কার নেতৃত্বে চলে এ ভাংচুর ও লুটপাট। ক্ষতিগ্রস্তদের অভিযোগ শৈলকুপা থানার ওসি কাজী আয়ুবুর রহমান ঘটনার কোন গুরুত্ব দেয়নি।

ঘটনাস্থলে গিয়ে ১০টি বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়েছে দেখা গেলেও ওসি সাংবাদিকদের কাছে বলেন, তেমন কোন ঘটনা ঘটেনি। জানতে চাইলে এ বিষয়ে ঝিনাইদহ পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান জানান, ঘটনা জানার পর সেখানে শৈলকুপা সার্কেল’র জ্যেষ্ঠ সহকারি পুলিশ সুপার তারেক আল মেহেদিকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে। গ্রামে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত