শিরোনাম

নারায়ণগঞ্জে শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে নিহত ১

আবদুল্লাহ আল মামুন, নারায়ণগঞ্জ  |  ১৯:১৬, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৮

মজুরি বৃদ্ধির দাবীতে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা শিল্প নগরী বিসিক এলাকায় আবারো একটি শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকদের বিক্ষোভ চলাকালে শ্রমিক-পুলিশের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। এসময় পুরো এলাকা রণক্ষেতে পরিণত হয়।

এ ঘটনা চলাকালিন বুলি বেগম (৪০) নামে এক নারী শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। তবে তার কিভাবে মৃত্যু হয়েছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। সে এনআর গ্রুপের ৭ তলা ভবনের ৮ নাম্বার লাইনের হেলপার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। বুলি বেগম বাড়ি নাটোরে।

পুলিশের দাবি, ভয়ে ও আতংকে বুলি বেগমের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়াও এ ঘটনায় কমপক্ষে ২০ জন পুলিশ-শ্রমিক আহত হয়েছে বলে জানা গেছে। আহতদের নগরীর ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল ও স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

পুলিশ ও বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা জানান, উৎপাদন মজুরি বৃদ্ধির দাবীতে এন আর গ্রুপের শ্রমিকরা বৃহস্পতিবার (০৬ডিসেম্বর) সকাল ১০ টায় কর্মবিরতি দিয়ে নারায়ণগঞ্জ-মুন্সিগঞ্জ সড়কে অবস্থান নেয়।

এসময় শ্রমিকরা রাস্তায় গাছের গুড়ি ফেলে আগুন ধরিয়ে অবরোধ সৃষ্টি করে বিক্ষোভ শুরু করে। খবর পেয়ে ফতুল্লা থানা পুলিশ ও শিল্প পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে শ্রমিকদের রাস্তা থেকে সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করলে শ্রমিকরা পুলিশের উপর ইট-পাটকেল নিক্ষেপ শুরু করে।

এতে এক পর্যায়ে শ্রমিক-পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষ ও কয়েক দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। এসময় ২০ পুলিশ সদস্যসহ অন্তত অর্ধশত সাধারণ শ্রমিক আহত হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনণ আনতে পুলিশ কয়েক রাউন্ড টিয়ার সেল ও শর্টগানের গুলি ছোড়ে।

সংঘর্ষের কারণে বেলা এগারোটা থেকে দুপুর বারোটা পর্যন্ত একঘন্টা নারায়ণগঞ্জ-মুন্সিগঞ্জ সড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকে। পরে স্থানীয় সংসদ সদস্য শামীম ওসমান ঘটনাস্থলে গিয়ে কারখানা মালিকদের সাথে কথা বলে শ্রমিকদের দাবী পূরণের আশ্বাস দিলে শ্রমিকরা শান্ত হয়। দুপুর ১ টায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে সড়কে যান চলাচল শুরু হয়।

ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এস এম মঞ্জুর কাদের দাবী করেন, পুলিশ কারো উপর হামলা করেনি। বরং শ্রমিকরা পুলিশের উপর হামলা করেছে। পুলিশ তাদের শান্ত করার চেষ্টা করেছে।

নারী শ্রমিক নিহত হওয়ার ব্যাপারে তিনি বলেন, সংঘর্ষ চলাকালে ভয়ে ও আতংকে হার্ট এ্যাটাক করে মৃত্যু হয়েছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে শিল্প পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহাবুব উন নবী জানান, শ্রমিকরা সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করলে পুলিশ তাদের সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে। এসময় শ্রমিকরা পুলিশের উপর হামলা করলে ২০ পুলিশ সদস্য আহত হয়।

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত