শিরোনাম

রংপুরে এক চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীর দাপট!

প্রিন্ট সংস্করণ॥রংপুর প্রতিনিধি  |  ০১:৪০, আগস্ট ২০, ২০১৮

রংপুর নগরীর নজিরেরহাট রাধাকৃষ্ণপুর এলাকার বাসিন্দা, রংপুর সরকারি নার্সিং ট্রেনিং ইনস্টিটিউটের ৪র্থ শ্রেণির কর্মচারী শফি ওরফে ভোলা মিয়ার বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী কায়দায় অন্যের ক্রয়কৃত জমি জবর দখলের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। ওই ব্যক্তি নিজের আত্মীয়স্বজনদের সহযোগিতায় নগরীর ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের গুপ্তপাড়ায় বসবাসকারী সাংবাদিক মিজানুর রহমান মিজানের ক্রয়কৃত জমি জবর দখলে নিতে চায়। ঘটনার নায়ক শফি ওরফে ভোলা মিয়াসহ ওই চক্রের ছয়জনের বিরুদ্ধে রংপুর কোতোয়ালি থানায় অভিযোগ করেন। পুলিশ, প্রত্যক্ষদর্শী ও বাদীর অভিযোগসূত্রে জানা যায়, নগরীর ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের গুপ্তপাড়ায় বসবাসকারী সাংবাদিক মিজানুর রহমান মিজান সম্প্রতি মৌজাÑরাধাকৃষ্ণপুর, জেএল নং-১০৮, খতিয়ান-৪১৯, দাগ-১৮৪৫ এর ২৪ শতক জমির মধ্যে ১২ শতক জমি জনৈক মো. ফছির উদ্দিন গংদের কাছ থেকে কবলামূলে ক্রয় করে ভোগ দখল করছেন। গত ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে উক্ত তফসিল বর্ণিত জমি রাধাকৃষ্ণপুর গ্রামের মৃত ইব্রাহিম শেখের ছেলে আসামি মো. শফি ওরফে ভোলা মিয়া (৫৫), রফিকুল ওরফে কাচু মিয়া (৫২), শফিয়ার রহমান (৪৮), রফিকুল ওরফে কাচু মিয়ার ছেলে রুবেল (২৬) ও রাসেল (১৮), শফি ওরফে ভোলা মিয়ার ছেলে রিয়াদসহ সংঘবদ্ধ আসামিরা বাদীর ক্রয়কৃত জমি জবর দখলের চেষ্টা চালায়। জমির মালিক বিষয়টি জানতে পেরে এলাকাবাসীর সহায়তায় ঘটনাস্থলে পৌঁছলে সংঘবদ্ধচক্র জমি থেকে সটকে পড়ে। অভিযোগে আরও জানা যায়, ওই জমিটি অভিযুক্তদের বাড়ির পাশে হওয়ায় তারা জমিক্রেতা সাংবাদিক মিজানকে তা শান্তিতে ভোগ করতে দেবে না বলে চক্রটি আগে থেকেই বিভিন্ন হুমকি-ধমকি ও ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে আসছিলো। জমিক্রেতা বিষয়টি স্থানীয়ভাবে আপোস-মিমাংসার উদ্যোগ নিলে একপর্যায়ে আসামিরা বাদীর কাছে ৬ শতক জমি লিখে নিতে চায়। বাদী আসামিদের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় গত ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে ওই জমি জবর দখলের অপচেষ্টা চালায়। এমতাবস্থায় বাদী কোতোয়ালি থানায় আসামিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের অভিযোগ দায়ের করেন। এ ব্যাপারে গতকাল রোববার কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, অভিযোগ পেয়েছি, কেউ যদি অন্যায়ভাবে কারও জমি জবর দখলের চেষ্টা চালায় তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত