শিরোনাম

চকরিয়ায় স্ত্রীর উপর নির্মমতা, স্বামী আটক

মোহাম্মদ উল্লাহ, চকরিয়া(কক্সবাজার)  |  ১৮:০৬, জুন ১৬, ২০১৯

কক্সবাজারে চকরিয়া উপজেলার খুটাখালী ইউনিয়নে টানা দু‘দিন ঘরে অবরুদ্ধ রেখে স্ত্রীর উপর নির্মমভাবে নির্যাতন চালানোর অভিযোগ উঠেছে স্বামীর বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় শনিবার রাত সাড়ে ৯টায় নির্যাতিত স্ত্রীকে পুলিশের সহতায় উদ্ধারপূর্বক চকরিয়া সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে আটক করা হয়েছে পাষন্ড যৌতুকলোভী স্বামীকে।

নির্যাতিত মহিলার বড়ভাই মোহাম্মদ ইউনুছ জানান, ২০১৪ সালের ১৩ অক্টোবর তার ছোটবোন শাহিনা আকতারের সাথে ইসলামী শরিয়া মোতাবেক বিয়ে হয় চিরিংগা ইউনিয়নের চরন্দীপগ্রামের মোহাম্মদ গিয়াসউদ্দিনের পুত্র মোহাম্মদ শাহেদের। দু‘জনের দাম্পত্য জীবনে নেমে আসে দু‘ফুট-ফুটে সন্তান যথাক্রমে হালিমাতুল সাদিয়া(৪) ও বাপ্পারাজ(২)। দু‘সন্তানের জননী হওয়ার পর স্বামী শাহেদ বিদেশ যাওয়ার প্রস্তাব করলে ২লাখ টাকা যৌতুক দাবী করে বসে।

বিদেশ যাওয়ার পর সে স্ত্রীর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ রাখলেও টাকা পাঠাতোনা। টাকা পাঠাতো পিতা-মাতার কাছে। অভিযোগ উঠেছে, বিদেশ থেকে স্বামীর পাঠানো টাকা না দিয়ে শ্বশুড়-শাশুড়ী মিলে উল্টো স্ত্রীর উপর নির্যাতন চালিয়ে আসছিল। নির্যাতস সইতে না পেরে পিতার বাড়ি চলে আসে শাহিনা। এ অবস্থায় প্রায় দু‘বছর ধরে স্ত্রীর কোনো খবরা-খবরও রাখেননি পাষন্ড স্বামী।

নির্যাতিত গৃহবধূ শাহিনার ভাই মোহাম্মদ ইউনুছ আরও জানান, অভিযুক্ত গিয়াসউদ্দিন ইতোমধ্যে বিদেশ থেকে বাড়ি ফিরলে কিছুদিন ধরে ভাল সংসার চলার পর আবারও ২লাখ টাকা যৌততুক দাবী করলে শুরু হয় পারিবারিক কলহ। সর্বশেষ গত ১৩ জুন রাত আনুমানিক সাড়ে ৯টার দিকে যৌতুকের দাবীতে স্বামী, শ্বশুর ও শাশুড়ী মিলে নির্মম নির্যাতন চালায়। নির্যাতনের পর প্রায় দু‘দিন তাকে ঘরের একরুমে অবরুদ্ধ করে কারও সাথে যোগাযোগ করতে দেয়নি।

পরে পাড়ালিয়াদের নিকট থেকে খবর পেয়ে শনিবার (১৫ জুন) রাত সাড়ে ৯টার দিকে পুলিশের সহযোগিতায় উদ্ধার করে চকরিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয় শাহিনাকে। ঘটনাস্থল থেকে পাষন্ড স্বামী গিয়াসউদ্দিনকে আটক করে চকরিয়া থানা পুলিশ।

উদ্ধারকারি পুলিশ অফিসার এস আই অপুবড়ুয়া জানান, নির্যাতনের সত্যতা প্রাথমিকভাবে প্রমাণ মিলেছে, তাই জড়িতদের বিরুদ্ধে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা হবে।

এমআর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত