শিরোনাম

সেনাসদস্যের ধর্ষণে ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্কুলছাত্রী

মজিবুল হক লাজুক, পাবনা  |  ২২:৩৯, মে ২৬, ২০১৯

 

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় ষষ্ঠ শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ চাকরিচ্যুত সেনাসদস্য মজনু সরকার (৪০) কে আটক করেছে পুলিশ। ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরী বর্তমানে ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা।

তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। অভিযুক্ত মজনু উপজেলা পার-ভাঙ্গুড়া ইউনিয়নের রাঙ্গালিয়া গ্রামের নুরুজ্জামান মাস্টারের ছেলে।

এ ঘটনায় নির্যাতিত কিশোরীর বাবা ভাঙ্গুড়া থানায় গত শুক্রবার রাতে লিখিত অভিযোগ করেন।

ধর্ষিতার স্বজনরা জানান, পাঁচ মাস আগে এক সন্ধ্যায় মজনু তার বাড়ির পাশের ওই কিশোরীকে বাড়িতে একা পেয়ে ধর্ষণ করে। এ ঘটনা কারো কাছে প্রকাশ করলে তাকে মেরে ফেলা হবে বলে হুমকি দেয়।

এ কারণে কিশোরী ভয়ে বিষয়টি চেপে রাখে। কিছুদিন পর মজনু একই ভাবে বাড়িতে একা পেয়ে ওই কিশোরীকে আবারো ধর্ষণ করে। এতে গর্ভবতী হয়ে পড়লে ওই কিশোরী ঘটনাটি তার বাব-মাকে ও ধর্ষক মজনুকে জানায়।

তখন মজনু গর্ভপাত করাতে ওই কিশোরীকে গোপনে কিছু ওষুধ সেবন করায়। ওষুধ খেয়ে সে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে গত বুধবার তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

এদিকে বিষয়টি গত দুই দিন উভয় পরিবার গোপন রাখলেও গত শুক্রবার সবাই জেনে যায়। পরে এ ঘটনায় অভিযুক্ত করে মজনুর নামে থানায় অভিযোগ দেয় কিশোরীর বাবা।

ধর্ষক মজনু ৪ সন্তানের জনক এবং লম্পট প্রকৃতির। তার বিরুদ্ধে একাধিক ধর্ষণের অভিযোগ ও বিয়ের নামে প্রতারণাসহ অনেক অভিযোগ রয়েছে। মজনু সেনাবাহিনীতে চাকরি করতেন। চাকুরির আচারণবিধি লংঘন করায় তাকে সেখান থেকে অনেক আগেই চাকরিচ্যুত্য করা হয়েছিল।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে ভাঙ্গুড়া থানার ওসি মো. মাসুদ রানা অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন অভিযোগ পাওয়ার পরই ধর্ষকে আটক করা হয়েছে। এ ছাড়া কিশোরীকে প্রাথমিকভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করে ধর্ষণের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে।

গত শনিবার সকালে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ভিকটিমকে পাবনা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে এবং অভিযুক্ত মজনুকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত