শিরোনাম

আমাকে চুমু খেতে চান সুভাষ ঘাই

বিনোদন ডেস্ক  |  ১৭:২৯, অক্টোবর ১৪, ২০১৮

এবার একজন উঠতি মডেল ও অভিনেত্রীর শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছে বলিউড নির্মাতা সুভাষ ঘাইয়ের বিরুদ্ধে। দ্বিতীয়বার এমন অভিযোগ ওঠার পর সেটি অস্বীকার করেছেন এই নির্মাতা। নিজেকে এই আন্দোলনের সমর্থক বলেও দাবি করেছেন সুভাষ ঘাই। রোববার (১৪ অক্টোবর) সকালে পোস্ট করা একটি টুইটে ৭৩ বছর বয়সী এই চলচ্চিত্র নির্মাতা লিখেছেন, তিনি '#মিটু' আন্দোলনের বড় সমর্থক। কেউ যদি তার সুনাম ক্ষুণ্ণ করতে চায়, সে জন্য সত্যিই দুঃখিত তিনি।

এর আগে শনিবার সন্ধ্যায় সুভাষ ঘাইয়ের বিরুদ্ধে মডেল অভিনেত্রী কেট শর্মা অভিযোগ করেন, গত ৬ আগস্ট সুভাষ ঘাই তাকে নিজের বাড়িতে ডেকে নেন। এ সময় তিনি তাকে জোর করে চুম্বন করার চেষ্টা করেন।

কেট বলেন, সুভাষ ঘাই আমাকে ম্যাসাজ করে দিতে বলেছিলেন। আমি প্রথমে খুবই অবাক হই। কিন্তু ওনার বয়সের প্রতি সম্মান জানিয়ে রাজি হই। আমি দুই থেকে তিন মিনিটের জন্য ম্যাসাজ করে দিই তাকে। এরপর আমার হাত ধুতে ওয়াশরুমে যাই। তিনিও আমার পিছু পিছু সেখানে যান। আমাকে সেখান থেকে নিজের শোয়ার ঘরে ডেকে নিয়ে যান। আমাকে বলেন কিছু বিষয়ে কথা বলবেন। ঘরে ঢুকেই তিনি আমাকে জড়িয়ে ধরেন এবং চুমু খাওয়ার চেষ্টা করেন।

সুভাষ ঘাইয়ের বিরুদ্ধে এই নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো এমন অভিযোগ উঠলো। এই সপ্তাহের শুরুতে তার বিরুদ্ধে এক নারী অভিযোগ করেন যে, সুভাষ তাকে বহু বছর আগে মদ খাইয়ে ধর্ষণ করেছেন।

ওই অভিযোগের প্রতিক্রিয়ায় সুভাষ ঘাই '#মিটু' আন্দোলন প্রসঙ্গে বলেছিলেন, এটা দুঃখজনক! যে কোনো ব্যক্তিকে কলুষিত করার একটি ফ্যাশন হয়ে উঠছে। কোনো তথ্য-প্রমাণ ছাড়াই অতীত থেকে কিছু গল্প এনে অভিযোগ সাজানো হচ্ছে। আমি দৃঢ়ভাবে এইসব মিথ্যা অভিযোগ অস্বীকার করছি।

আর এবারের অভিযোগের বিষয়ে টুইটে সুভাষ ঘাই লিখেছেন, '#মিটু' আন্দোলনের একজন বড় সমর্থক আমি। এই আন্দোলন নারীর ক্ষমতায়নের একটি বড় অস্ত্র। কিন্তু আশা করি, সাময়িক খ্যাতির লোভে কোনো নারী এই আন্দোলনের অপ্রত্যাশিত সুবিধা নেবেন না। আমার সুনামের ক্ষতি করার চেষ্টা চলছে দেখে আমি সত্যিই দুঃখিত।

এর আগে শুক্রবার এক টুইটে তিনি লিখেছেন, কপাল আপনাকে ভালো সময় এবং খারাপ সময় দেখায়। আমি এই আন্দোলনের শিকার হয়ে পড়ায় দুঃখিত। কিন্তু আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ যারা জানেন যে, আমি নারীদের ও তাদের চেতনাকে কতখানি সম্মান করি।
সূত্র: এনডিটিভি

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত