শিরোনাম

ইশিকা-নওয়াজের যৌনদৃশ্য ভাইরাল

বিনোদন ডেস্ক  |  ১৩:০৫, জুলাই ১৬, ২০১৮

'সেক্রেড গেমস'-এ তাঁর সেক্স সিন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল।হাওড়ার মেয়ে। মুম্বায়ে সেটেলড। টেলিভিশনের বিভিন্ন বিজ্ঞাপনের মুখ মন্দিরতলার ইশিকা অভিনয় করেছেন 'সেক্রেড গেমস'-এ।

পর্দায় উপস্থিতি বেশি সময়ের না। কিন্তু নওয়াজের সঙ্গে তাঁর সেক্স সিনের ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল। ওই মাপের অভিনেতা, তাঁর সঙ্গে এ রকম একটা দৃশ্য, ভয় পাননি?

ইশিকা বলছেন, 'নওয়াজ বুঝতেই দেননি যে তিনি অত বড় মাপের অভিনেতা। প্রথমে উনি একটু ইতস্তত বোধ করছিলেন।

আমি বললাম, স্যার ফিল ফ্রি, আই হ্যাভ ডান আ ক্যারেক্টার লাইক দিস। আমার অসুবিধে হবে না। অনুরাগ কাশ্যপও আমাকে কমফর্ট করার জন্য বারবার বলছিলেন, তুম ঠিক হো তো? দৃশ্যটায় নওয়াজ আমাকে মারছিলেন। ওই টেকগুলোর পর বারবার আমাকে সরি বলছিলেন নওয়াজ স্যার।'

ভাইরাল হওয়া সিনের প্রশংসা যেমন হচ্ছে, তেমনই ট্রোলড-ও হচ্ছেন ইশিকা। যা নিয়ে তাঁর মন্তব্য, "এর আগেও অনেক শর্ট ফিল্মে এ রকম সিন করেছি। আমার কাছে পারফরম্যান্সই আসল। বাবা-মাকে ছেড়ে, বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে ব্রেকআপ করে, কলকাতা ছেড়ে একা মুম্বাই চলে আসি, শুধু অভিনয় করব বলে। মাকে যখন ফোন করে নাওয়াজের সঙ্গে এই সিনের কথা বলি, মা বলল করিস না, লোকে খারাপ বলবে। মাকে বললাম, সারা বিশ্ব কী ভাবল আমার কিছু যায় আসে না। তুমি চাও কি না বলো? মা আর কিছু বলেনি।"

'সেক্রেড গেমস'-এর অন্যতম পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপ নিয়েও দারুণ অভিজ্ঞতা ইশিকার। "প্রথম দিন ভয়ে আমার হাত-পা ঠান্ডা হয়ে গিয়েছিল। অত বড় পরিচালক! 'গ্যাংস অফ ওয়াসেপুর', 'শয়তান'-এর মতো সুপারহিট সব ছবি করেছেন। তাঁর ছবিতে শুধু অভিনয় নয়, তাঁর সামনে অভিনয় করতে হবে, এটা ভেবে ভয়টা আরও বাড়ছিল।

কিন্তু সেটে ঢুকতেই অনুরাগ আমার দিকে এগিয়ে এসে নর্ম্যালি জিজ্ঞেস করলেন, "ক্যায়সে হো আপ?" আমি তো তখনও বুঝে উঠতে পারছি না এটা স্বপ্ন না সত্যি। তার পর যত কথা এগোল, বুঝলাম অনুরাগ কতটা ডাউন টু আর্থ। একটা টেক শেষ হচ্ছে আর জিজ্ঞেস করছেন, "আর ইউ ওকে? সব ঠিকঠাক হ্যায়?" সিন শেষে অ্যাপ্রিসিয়েশন পেলেন কিছু?

"মনিটরে আমি আর নওয়াজউদ্দিন স্যর একসঙ্গে সিনটা দেখছিলাম। আমি মনিটর কম, অনুরাগের মুখ বেশি দেখছিলাম। বোঝার চেষ্টা করছিলাম ভাল না খারাপ করেছি। সিন শেষ হতেই বললেন, 'ব্যাং অন। টু গুড ইশিকা!' তার পর বললেন, 'ম্যাঁয় মুকেশ ছাবড়া (কাস্টিং ডিরেক্টর) কো টেক্সট করুঙ্গা। বহুত অচ্ছা কাম কিয়া হ্যাঁয় তুমনে।' উনি সত্যিই মুকেশজিকে টেক্সট করেছিলেন। মুকেশজি পরে আমাকে টেক্সট করে বলেন, 'ইউ মেড মি প্রাউড ইশিকা।'

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত