শিরোনাম

শোক দিবসের আয়োজন

প্রিন্ট সংস্করণ  |  ০৯:৫৬, আগস্ট ১৫, ২০১৯

জাতীয় শোক দিবস আজ। সারা দেশে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে পালিত হবে দিবসটি। শোক দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে দেশীয় টেলিভিশনগুলো। আয়োজনের উল্লেখযোগ্য খবরগুলো তুলে ধরা হলো

এনটিভি : জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দিনভর বিভিন্ন অনুষ্ঠান প্রচার হবে এনটিভির পর্দায়। আয়োজনের মধ্যে থাকছে সকাল ৬টা ১৫ মিনিটে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন। অনুষ্ঠানটি ধানমন্ডি থেকে সরাসরি সমপ্রচার করবে টেলিভিশনটি। সকাল ৬টা ৫৫ মিনিটে প্রচার হবে বিশেষ অনুষ্ঠান। সকাল ১০টা ৫ মিনিটে টুঙ্গীপাড়া থেকে সরাসরি সমপ্রচার করা হবে বঙ্গবন্ধুর মাজারে শ্রদ্ধা। দুপুর ১২টা ২০ মিনিটে বিশেষ টক শো ‘শোকাবহ ১৫ আগস্ট’। এস এম আকাশের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন এবং শামসুজ্জমান খান। সন্ধ্যা ৬টা ৪৫ মিনিটে আবৃত্তি অনুষ্ঠান ‘তোমাকে হারিয়ে’। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেছেন মাহিদুল ইসলাম। মোহাম্মদ নূরুজ্জামানের প্রযোজনায় এতে অংশগ্রহণ করেছেন জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, রূপা চক্রবর্তী, আহকাম উল্লাহ, তামান্না ডেইজী, লিজা চৌধুরী। রাত ১১টা ৩০ মিনিটে টক শো ‘চিরঞ্জীব মুজিব’। এতে আলোচক হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ড. কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী এবং সেলিনা হোসেন।

বাংলাভিশন : জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বাংলাভিশনে প্রচার হবে বিশেষ অনুষ্ঠান ‘বঙ্গবন্ধুর জন্য প্রণতি’। অনুষ্ঠানে অতিথি থাকবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মতিয়া চৌধুরী, ইমেটিরাস প্রফেসর ড. এ কে আজাদ চৌধুরী প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেছেন রামেন্দু মজুমদার। অনুষ্ঠানে আলোচকদের আলোচনায় ওঠে এসেছে বঙ্গবন্ধুর বর্ণাঢ্য জীবনের গল্প। ‘বঙ্গবন্ধুর জন্য প্রণতি’ বাংলাভিশনে প্রচার হবে আজ বিকেল ৪টা ৩০মিনিটে।

এটিএন বাংলা : শোক দিবসে বেশ কয়েকটি বিশেষ অনুষ্ঠান থাকছে এটিএন বাংলার পর্দায়। সকাল ৯টা ৩০ মিনিটে প্রচার হবে তথ্যচিত্র ‘মৃত্যুহীন প্রাণ’। বেলা ২টা ২০ মিনিট, রাত ৭টা ৩০ মিনিট, রাত ৮টা ৩০ মিনিট, রাত ৯টা ৩০ মিনিট এবং রাত ১০টা ৩০ মিনিটে প্রচার হবে শোক দিবসের বিশেষ অনুষ্ঠান।

দীপ্ত টিভি : শোক দিবস উপলক্ষে তানভীর মোকাম্মেল পরিচালিত ‘রাবেয়া’ চলচ্চিত্রটি প্রচার করবে দীপ্ত টিভি। আজ সকাল ১০টায় প্রচার হবে চলচ্চিত্রটি। এতে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন তৌকির আহমেদ, বন্যা মির্জা, আলী যাকের প্রমুখ। যুদ্ধের সময় এক প্রত্যন্ত গ্রামে বসবাস করছিল দুই এতিম বোন রাবেয়া ও রোকেয়া। তাদের চাচা এমদাদ কাজী মুসলিম লীগের নেতা এবং পরবর্তীকালে চরম পাকিস্তানপন্থি। রাবেয়া-রোকেয়ার একমাত্র ভাই খালেদ মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেন। একদিন এক গেরিলা অভিযান চালানোর সময় খালেদ শহীদ হন। পাকিস্তান বাহিনীর ক্যাপ্টেনের নির্দেশে খালেদের মৃতদেহ নদীর তীরে ফেলে রাখা হয়। এলাকার চেয়ারম্যান, শান্তি কমিটির লিডার এমদাদ কাজী আদেশ জারি করেন, কেউ যেন খালেদের লাশ কবর দেওয়ার সাহস না দেখায়। কিন্তু এক রাতে ভাইকে কবর দিতে বেরিয়ে আসে রাবেয়া। এমদাদ কাজীর লোকজন রাবেয়াকে ধরে নিয়ে আসে। এমদাদ রাবেয়াকে ভর্ৎসনা করেন। চুপ করে থাকে না রাবেয়াও। নিজের পক্ষে যুক্তি দেখায়। সিনেমার শেষে দেখা যায়, গ্রামবাসীর মধ্যে তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধারাও অভিযান চালায় এই গ্রামে। অবশেষে অর্জিত হয় বিজয়। এভাবেই শেষ হয় ১০৫ মিনিটের সিনেমাটি।

এসএ টিভি : শোক দিবসে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্মরণ করবে স্যাটেলাইট টেলিভিশন এসএ টিভি। জাতির পিতার স্মরণে আজ সকাল ৯টা ৩০ মিনিটে প্রচার হবে বিশেষ প্রামাণ্যচিত্র ‘একটি কুড়ির মৃত্যু’। রাত ৮টায় প্রচার হবে আরও একটি বিশেষ প্রামাণ্যচিত্র ‘স্মৃতির প্রেরণা’। ইয়াকুব আলী মিঠুর প্রযোজনায় প্রামাণ্যচিত্রটি নির্মিত হয়েছে। ১৯৭৫ সালে জাতির পিতার মৃত্যুর পর বঙ্গবন্ধু কন্যা ধানমন্ডি ৩২ নম্বরের বাড়িটি বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টে দান করেন। যা এখন বঙ্গবন্ধু জাদুঘর নামে পরিচিত। সেই জায়গাগুলো ও বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আরো কিছু তথ্য তুলে ধরা হয়েছে এই প্রামাণ্যচিত্রে।

মাছরাঙা টেলিভিশন : জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আজ বিকেল ৫টা ৩০ মিনিটে প্রচার হবে শিশুতোষ চলচ্চিত্র ‘আমাদের বঙ্গবন্ধু’। সন্ধ্যা ৭টা ৩০ মিনিট এবং রাত ৮টায় প্রচার হবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বিশেষ দুটি প্রামাণ্যচিত্র। সেগুলো হলো ‘টি ৫৪’ এবং ‘বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে’।
বৈশাখী টিভি : শোক দিবসে বৈশাখী টেলিভিশনে রয়েছে ব্যতিক্রমী আয়োজন। সকাল ১০টা ১৫ মিনিটে প্রচার হবে বঙ্গবন্ধুর ওপর তথ্যবহুল আলোচনা। সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শিমুল মুস্তাফার উপস্থাপনায় আলোচনায় অংশ নিবেন কবি নির্মলেন্দু গুণ ও কবি কাইয়ুম নিজামী। সপরিবারে বঙ্গবন্ধু হত্যা এবং তার ওপর রচিত সব সাহিত্য নিয়েই এ অনুষ্ঠান। ৪০ মিনিট ব্যাপী এ অনুষ্ঠানটি প্রযোজনা করেছেন আলমগীর রাসেল। বিকাল ৫টা ৪৫ মিনিটে প্রচার হবে প্রামাণ্য অনুষ্ঠান ‘রক্তে ভেজা ১৫ আগস্ট’। স্মৃতিচারণমূলক এ অনুষ্ঠানটি সাজানো হয়েছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে শহীদ হওয়ার পরবর্তী প্রেক্ষাপটকে ঘিরে। বঙ্গবন্ধুর দাফনে অংশ নেয়া অনেকেই এখনো বেঁচে আছেন। তাদের জবানিতেই ওঠে এসেছে সেই ভয়াল দিনের কথা। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করেছেন জাতীয় সংসদ সদস্য ও অভিনেতা ফারুক, অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত