শিরোনাম

‘ছবির অ্যাকশন নিয়ে ভালো রিভিউ পাচ্ছি’

প্রিন্ট সংস্করণ  |  ০৯:৫৩, আগস্ট ১৫, ২০১৯

সারা দেশের ৫২টি হলে চলছে জাজ মাল্টিমিডিয়া প্রযোজিত ‘বেপরোয়া’ ছবিটি। ছবিতে চিত্রনায়িকা ববিকে নিয়ে পর্দায় হাজির হয়েছেন চিত্রনায়ক জিয়াউল রোশান। ছবিটির বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তার সঙ্গে কথা বলেছেন আল কাছির

শুটিংয়ের অভিজ্ঞতা—
দারুণ অভিজ্ঞতা হয়েছে আমার শুটিং করতে গিয়ে। কলকাতার পরিচালক রাজা চন্দ এবং এ ছবির প্রযোজক আবদুল আজিজ ভাই কোনো বিষয়ে ছাড় দিতে রাজি ছিলেন না। চিত্রায়ণ করতে গিয়ে পরিচালক কোনো দিক থেকে কমতি রাখেননি। পুরো ছবির চিত্রায়ণ আমরা দেশের বাইরে করেছি, যেটা এরই মধ্যে দর্শক জেনে গেছে। রামুজি ফিল্ম সিটিতে কাজ করতে গিয়ে ভিন্ন ধরনের অভিজ্ঞতা হয়েছে আমার। সব মিলিয়ে দারুণ।

রোশান ও ববি জুটি—
চিত্রনায়িকা ববি খুবই হেল্পফুল। উনি আমার সিনিয়র একজন অভিনেত্রী। কিন্তু কাজ করতে গিয়ে সে বিষয়টি আমার কখনো মনে হয়নি। উনি খুবই কো অপারেটিভ ছিলেন। ববির সঙ্গে আমার খুব বেশি দৃশ্য নেই। কিন্তু রোমান্টিক যতটুকু দৃশ্য ছিল সেগুলো খুব ভালো ছিল। দর্শক এগুলো খুব ভালোভাবেই নিয়েছে।

এ ছবির পিক পয়েন্ট—
বাংলাদেশের প্রেক্ষাপট থেকে চিন্তা করলে এ ছবির পিক পয়েন্ট দুটি। অ্যাকশন এবং গল্প। এখন পর্যন্ত ছবির অ্যাকশন নিয়ে আমি খুব ভালো রিভিউ পাচ্ছি। আলহামদুলিল্লাহ। মুক্তির প্রথম দিনেও এ ছবিটি ৬০ শতাংশ দর্শক টেনেছে বলে আমার কাছে খবর এসেছে। আর সন্ধ্যার শোগুলোতে হাউজফুল যাচ্ছেই। এটি অনেক বড় একটি পাওয়া আমার জন্য। অ্যাকশনের পাশাপাশি ছবি দারুণ একটি গল্প আছে। যে গল্পটি পারিবারিক গল্প, সকলে একসঙ্গে দেখার মতো গল্প। এনজয় করার মতো গল্প। দর্শক যেন পরিবার নিয়ে ছবিটি দেখতে পারে সেদিকটি সবসময় নজর দিয়েছি আমরা।

হল ভিজিটের অভিজ্ঞতা—
দর্শক অনেকদিন ধরেই এই ছবিটির জন্য অপেক্ষা করছিল। হল ভিজিটে যখন গিয়েছি তখন অনেকেই বলেছেন, এ ছবিটি আগে কেন আসল না। আমার মনে হয়, দর্শক যে প্রত্যাশা নিয়ে ছবিটির জন্য অপেক্ষা করেছেন সে প্রত্যাশা আমরা পূরণ করতে পেরেছি। দর্শকের পজেটিভ রিভিউ দেখে আমার সেটাই মনে হয়েছে। এখন শুধু সাকসেসের পালা। এখনো যারা ছবিটি দেখেননি তাদের অনুরোধ করছি, আপনারা ছবিটি দেখুন। বিরক্তবোধ করবেন না। ছবির গল্প, অ্যাকশন আপনাকে মুগ্ধ করবে।

নায়ক রোশান প্রসঙ্গে বলুন—
আগে তো খুবই সাধারণ একজন মানুষ ছিলাম। কিন্তু এখনো আমি নিজেকে একজন সাধারণ মানুষই মনে করি। আমি আমার দিক থেকে চেষ্টা করি যাচ্ছি। আগে নিজের মধ্যে একটু জেনারেল ফিল ছিল এখন একটু অন্যরকম অনুভূতি কাজ করে। তবে আমি ব্যাপারটাকে এনজয় করি। আমি মনে করি প্রতিটি ছবিকে সামনে রেখে আলাদা করে প্রস্তুতি নিতে হয় আমাকে। যখন যে গল্প সামনে আসে তখন সেটির জন্যই নিজেকে প্রস্তুত করি।

ইন্ডাস্ট্রি প্রসঙ্গে—
আমার মনে হয় ইন্ডাস্ট্রিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য খুব ফেয়ার কম্পিটিশিন থাকা উচিত। হিংসা বিদ্বেষ নয়, করো পেছন থেকে টানাটানি বন্ধ করা দরকার। কেউ কারো পেছন থেকে টানবে সেটি একদমই থাকা উচিত নয়। এফডিসি থেকে শুরু করে সকলকে মিলেমিশে কাজ করা উচিত। ছোটখাটো কোনো বিষয় নিয়ে কারো যেন ক্ষতি না হয় সেটি খেয়াল রাখা দরকার। কিভাবে ইন্ডাস্ট্রিকে সামনে এগিয়ে নেয়া যায়, দর্শকের কিভাবে হলে আনা যায়— সর্বোপরি আমাদের সেই চিন্তাই করতে হবে। আমার মনে হয়, শাকিব ভাইয়ের উচিত আমাদেরকে প্রতিটি ছবিকে উৎসাহ দেয়া। উনি একজন বিগস্টার। আমার ছবি মুক্তি পেয়েছে আমি আশা করি, উনি আমাকে উৎসাহ দিবেন যেন আমাদের ছবিটি ভালো যায়। তার দর্শকদেরও তিনি বলবেন। শাকিব ভাইয়ের ছবি মুক্তি পেলে আমি স্ট্যাটাস দিয়ে বলি, ছবিটি দেখতে চাই। আমাদের শিল্পীদের মধ্যেও একটি বন্ডিং তৈরি হওয়া উচিত। তাহলেই আমরা এগিয়ে যেতে পারব।

নতুন কাজ—
সামনে ব্যাক টু ব্যাক অনেকগুলো ছবি আছে আমার হাতে। শিডিউল দেয়া আছে কয়েকটি ছবির। চলতি মাসেই নতুন একটি ছবির চিত্রায়ণ শুরু হবে। সেপ্টেম্বরের শেষ দিকে আরো একটি ছবির শিডিউল দেয়া আছে। সেগুলো আপনাদের ঠিকমতো জানিয়ে দেবো।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত