শিরোনাম

বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে মধুপুরের বেগুন

প্রিন্ট সংস্করণ॥হাফিজুর রহমান. মধুপুর (টাঙ্গাইল)  |  ০১:১৬, মে ৩১, ২০১৮

টাঙ্গাইলের মধুপুরে আনারসের পাশাপাশি বেগুনের ফলনে রেকর্ড ছাড়িয়েছে এবং দাম ভালো পাওয়ায় কৃষকের মুখে হাসি। বেগুন চাষ করে একদিকে কৃষকরা যেমন আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন অন্যদিকে দেশের মানুষের পুষ্টি ও সবজির চাহিদা পূরণে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখছে। সরেজমিন জানা গেছে, মধুপুর উপজেলার কুড়ালিয়া ইউনিয়নের কদিমহাতীল, টিকরী, কোনাবাড়ী, কুড়াগাছা ইউনিয়নের পিরোজপুর, গোলাবাড়ী ইউনিয়নের গোলাবাড়ী, বেরীবাইদ ইউনিয়নের বেরীবাইদ মাগুন্তিনগর, জাঙ্গালিয়া গ্রামসহ বিভিন্ন গ্রামে গত কয়েক বছর ধরে মাটির অনুর্বরতার কারণে চাষীরা তাদের জমিতে ধান আবাদ না করে বেগুনের আবাদ শুরু করেছেন।
অধিক লাভজনক হওয়ায় এলাকার প্রত্যেক কৃষকই ৫ কাঠা থেকে সর্বোচ্চ ২৬ বিঘা পর্যন্ত জমিতে বেগুনের চাষ করেছেন। এসব এলাকায় মাঠে মাঠে এখন কেবল বেগুনের ক্ষেত। কৃষকরা হাইব্রিড ও নসিমন এবং যশোরের ইসলামপুরী ও সাদা গুটি জাতের বেগুন চাষ করেছেন। উপজেলার মধুপুরের অনেক বেগুন চাষীরা বিঘায় বিঘায় জমি লিজ নিয়ে বেগুন চাষ শুরু করেছেন। এ উপজেলায় প্রায় ৪০/৫০ জন বেগুন চাষী রয়েছে। তারাও অনুরূপভাবে ৬০০ থেকে ৮০০ কেজি বেগুন বিক্রি করে থাকেন। বেগুন চাষিদের হিসেব মতে শুধু এ উপজেলায়ই প্রতিদিন ২০ লাখ টাকার বেগুন উৎপাদন হচ্ছে। এ উপজেলার সবজি রপ্তানি হচ্ছে বিদেশের মাটিতেও। বেগুন বিক্রি করে এ উপজেলায় অনেক বেগুন চাষী স্বাবলম্বি হয়েছেন। উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মাহমুদুল হাসান জানান, মধুপুরে এ বছরে অনেক জমিতে বেগুন চাষ হয়েছে।
কৃষি বিভাগ কৃষকদের পাশে থেকে তাদের নিয়মিত নানা পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছে। তবে কৃষকরা বেগুনের প্রধান শত্রু পোকা দমনে যদি সেক্স ফেরোমিন ফাঁদ ব্যবহার করে তাহলে ফলন আরো ভালো হবে।
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত