কুষ্টিয়াসহ দক্ষিণাঞ্চলের ৮ জেলায় গম চাষীরা হতাশ

নজরুল ইসলাম মুকুল, কুষ্টিয়া  |  ১৩:২৯, নভেম্বর ০৭, ২০১৭

কুষ্টিয়াসহ দক্ষিণাঞ্চলের ৮ জেলায় গম চাষে নিষেধাজ্ঞা জারী করেছে কৃষি মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের এই নির্দেশনা কৃষি সংশ্লিষ্ট সকল বিভাগকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে। কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, গমে ব্লাস্ট সংক্রমনের ফলে কুষ্টিয়াসহ দেশের ৮ জেলায় গম চাষ থেকে বিরত থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। জেলাগুলো হচ্ছে- কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ, যশোর, মাগুড়া, নড়াইল ও ভোলা।

২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারীতে মেহেরপুর জেলায় এমন সংক্রমন দেখা দিলেও এসকল জেলায় পরপর ৩ বছর গম চাষ না করার নির্দেশনা আসে কৃষি মন্ত্রণালয়ের। কিন্তু কৃষি বিভাগের সেই নির্দেশনা সত্বেও গত বছর এ অঞ্চলের কৃষকরা গম চাষ করে ব্যাপক ফলন পান। ভাল ফলন পাওয়ায় এবারও গম চাষে আগাম প্রস্তুতি নিয়েছে কৃষকরা। তবে বিএডিসি বীজ সরবরাহ বন্ধ রাখায় চাষীদের খালি হাতে ফিরে যেতে হচ্ছে। বীজ না পেয়ে দোকানে দোকানে কৃষকের ভীড় করতে দেখা গেছে। বিএডিসি কর্মকর্তাদের দাবী এ সকল অঞ্চলে বিএডিসি বীজ বরাদ্দ দিলেও মন্ত্রণালয়ের নির্দেশের পর বীজের সরবরাহ বন্ধ রাখা হয়েছে। কৃষি বিভাগের এমন সিদ্ধান্তে হতাশ চাষীরা।

বীজ না পাওয়ায় হতাশার কথা জানিয়েছেন কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার বড়ুরা গ্রামের লুৎফর শেখ। তিনি জানান গতবার ৩ বিঘা জমিতে গমের আবাদ করে ভালো ফলন পেয়েছিলাম। এবারও গমের আবাদ করব বলে বীজ কিনতে এসেছি দোকানে। কিন্তু সরকার বীজ না দেয়ায়, বীজ না পেয়ে হতাশ হয়ে ফিরে যাচ্ছি।

বীজ নিতে আসা আরেক চাষী পলাশ আলী জানান, গমের আবাদের বিষয়ে আমাদেরকে কোন পরামর্শ দেয়নি কৃষি বিভাগ। কিন্তু হঠাৎ করেই বিএডিসি’র বীজ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আমরা বিপাকে পড়েছি। বিভিন্ন কোম্পানীর বীজ বেশি দামে কিনে তা আবাদ করতে হচ্ছে।

বিএডিসি’র উপ-পরিচালক (বীজ ও বিপনন) এ.কে.এম কামরুজ্জামান জানান, কুষ্টিয়া অঞ্চলে এবার গমের বীজের বরাদ্দ নেই। বিএডিসি প্রথমে বীজ বরাদ্দ দিলেও মন্ত্রণালয়ের নির্দেশের পর বীজের সরবরাহ বন্ধ রাখা হয়েছে। সে কারনে কৃষক এবং ডিলারদের মাঝে বীজ সরবরাহ করা যাচ্ছে না। তাছাড়া কৃষি বিভাগ থেকেও গম উৎপাদনের বিষয়ে কোন লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়নি। বিএডিসি’র ডিলার সাগর আহমেদ জানান, বিএডিসি বীজ সরবরাহ বন্ধ করে দেয়ায় চাষীরা বীজ নিতে এসে না পেয়ে হতাশ হয়ে ফিরে যাচ্ছেন। তাছাড়া কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে কোন পরামর্শও নেই গম চাষের বিষয়ে।

কুষ্টিয়া বীজ ডিলার এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ফখরুল ইসলাম সিদ্দিকী বলেন, চাষী পর্যায়ে গম বীজের ব্যাপক চাহিদা আছে। প্রতিদিন গম বীজ কিনতে চাষীরা দোকানে ভীড় করছেন। কিন্তু বিএডিসি গম বীজ বিতরণ না করায় আমরা চাষীদের বীজ দিতে পারছি না।

কুষ্টিয়া কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বিনয় কৃষ্ণ দেবনাথ জানান, ২০১৫ সালে কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গাসহ দেশের বেশ কিছু জেলায় গমে ব্লাষ্ট রোগ শনাক্ত হয়। এর ফলে কৃষি বিভাগ থেকে গম চাষে বিরত থাকতে চাষীদের পরামর্শ দেয়া হয়েছিল। বিশেষ করে বারি ২৬ জাতের গম চাষ না করার কঠোর নির্দেশনা ছিল। পরের বছরের বীজ শোধন করে বপনের নির্দেশনা দেয়া হলেও কিছু কিছু জমি পুনরায় এ রোগে আক্রান্ত হয়।

গত বছর জেলায় ১৩ হাজার হেক্টর জমিতে গমের আবাদ হয়েছিল গমের ফলনও ছিল ভালো। তবে যেহেতু কৃষি বিভাগের নির্দেশনা পর পর তিন মৌসুম গম চাষ কর যাবে না। সেই কারনে এবারও গম চাষে নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে না। তবে ওই কর্মকর্তা জানান, যারা গমের আবাদ করতে ইচ্ছুক তাদেরকে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছেনা। অবশ্য যারা গম উৎপাদনে ইচ্ছুক তাদেরকে বিরতও থাকতে বলা হচ্ছেনা।