শিরোনাম

শীতে লাউ চাষে ঝুঁকছেন বরিশালের চাষিরা

১৯:২৯, ডিসেম্বর ২৬, ২০১৬

 

লাভ বেশি হওয়ায় বর্ষার চেয়ে শীতের সবজি চাষে বেশি ঝুঁকছেন বরিশালের চাষিরা। তাই এ সময়টায় ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা। আবহাওয়া অনুক‍ূলে ও তেমন রোগ বালাই না থাকায় শীতকালের সবজি চাষে বাম্পার ফলনের আশা করছেন কৃষকরা।

 

কৃষি নির্ভর বরিশালের চাষিদের উৎপাদিত সবজি স্থানীয়ভাবে চাহিদা মিটিয়ে পাইকারদের হাত ঘুরে যাচ্ছে বিভিন্ন জেলা শহরে।

 

বরিশালের বিভিন্ন উপজেলা ঘুরে দেখা গেছে, লাউ, বরবটি, ম‍ূলা, ফুলকপি, বাঁধাকপি, টমেটো, লালশাক, পালং শাক, বেগুন, করল্লা, শিমসহ নানা শীতকালীন সবজি চাষে সময় পার করছেন চাষিরা।

বর্তমানে খুচরা ও পাইকারি বাজারে সবজির বিক্রিও বেশ ভালো। তাই এসব সবজি চাষ করে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন এই এলাকার কৃষক।

 

বরিশাল সদর উপজেলার টুঙ্গিবাড়িয়ার চাষি মোস্তফা জানান, শীতের আবহাওয়া শুরুর সঙ্গে সঙ্গেই শীতকালীন শাক-সবজি চাষাবাদ শুরু করেন তিনি। এখন তার খেতে ৪২টির মতো লাউ গাছ রয়েছে। যা থেকে গত কয়েক মাসে তিনি ৪ হাজারের মতো লাউ বিক্রি করেছেন। এ গাছগুলো থেকে আরো ৪ হাজার লাউ বিক্রি করবেন বলে আশা করেন তিনি। যা থেকে খেতের ও নিজের শ্রমের খরচ বাদ দিয়েও ভালোই লাভ থাকবে তার। ইতোমধ্যে তার সব খরচ উঠে গেছে। লাউয়ের চাষ শেষে এই খেতে শীতকালীন অন্য কোনো সবজি চাষ করবেন বলে জানান তিনি।

 

তিনি আরো জানান, বর্ষাকালে নিচু জমিতে পানি জমে থাকে। সে সময় ধান লাগানো ছাড়া আর কোন চাষ করা সম্ভব হয়না। তার অনেক জমি রয়েছে এক ফসলি। সেখানে ধান চাষ করে তেমন লাভ করা সম্ভব হয়না। বর্ষাকালে পানি জমে থাকা জমিতে কৃষিকাজ করা কঠিন।

 

লাউ, কুমড়ো পেঁপে এসব ফসলের গাছের গোড়ায় পানি জমে থাকলে পচন ধরে গাছ মরে যায়। কিন্তু শীতকালে সে সমস্যা নেই। আবার ধানে কত রোগ-বালাই দেখা দেয়, সে ক্ষেত্রে শীতকালীন সবজিতে রোগ বালাই তেমন একটা হয় না।

 

বর্ষাকালে খেতে বেশি শ্রম দেওয়া লাগে তবে শীতকালে তার প্রয়োজন হয় না, কুয়াশা অনেক ফসলের ক্ষতির কারণ হলেও বর্ষাকালের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে সব হারানোর মতো ঘটনা তো ঘটে না। তাছাড়া শীতকালীন সবজির দামও বেশ ভালো পাওয়া যায়।

 

বরিশাল নগরীর করমজা এলাকায় গিয়াস উদ্দিন লিটু সরদার নামে এক কৃষক বলেন, শীতের আগেই জমিতে বরবটি ও করল্লা লাগিয়ে ছিলাম। সেগুলো এখন বাজারে বিক্রি করছি। শীতের শুরুতে এসব সবজি বাজারে ওঠানোই ভালো দাম পেয়েছি। এখন বিভিন্ন শাকের চাষ শুরু করেছি। অন্যান্য ফসলের চেয়ে সবজি চাষে লাভ বেশি হয়। আবার শীতের আগাম সবজি চাষে লাভ আরও বেশি। তাই এই এলাকার মানুষ একজনের দেখাদেখি অন্যজনও আগাম সবজি চাষে ঝুঁকে পড়ছেন।

 

সবজি চাষিরা জানান, শীতকালীন সবজি হিসেবে চাহিদা বেশি থাকে শিম, লাউ, ফুলকপি, শালগম, বাঁধাকপি, আলু, বেগুন, শশা ও কাঁচা মরিচের।

 

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর বরিশাল জেলার উপ-পরিচালক রমেন্দ্র নাথ বাড়ৈ বলেন, কৃষকরা শীতের সবজি ফুলকপি, বাঁধাকপি, পাতাকপি, শিম, লাউ, পুঁইশাক, পালংশাক চাষ করে লাভবান হচ্ছেন। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবার শুরু থেকেই সবজির আবাদ হচ্ছে আশানুরূপ। এছাড়া এখন নতুন ফর্মুলায় চাষ হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের সবজি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত