শিরোনাম

লালপুরে আমের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা

প্রিন্ট সংস্করণ॥মো. আশিকুর রহমান টুটুল, লালপুর (নাটোর)  |  ০১:৩৮, মার্চ ২১, ২০১৯

চৈত্রের শুরুতে মধুমাস জৈষ্ঠ্যের আগমনী বার্তা নিয়ে নাটোরের লালপুর উপজেলার আম গাছগুলোতে মুকুল ঝরে দেখা মিলেছে সবুজ আমের গুটির। চলতি মৌসুমে বাগান ও বাড়ির আঙ্গিনায় আম গাছগুলোতে আশানুরূপ আমের গুটি আশায় ও আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এ বছর আমের বাম্পার ফলনের আশা করছেন বাগান মালিক ও ব্যবসায়ীরা। গতকাল বুধবার সরেজমিন উপজেলার বিভিন্ন আমবাগান ঘুরে দেখা গেছে, মুকুল ঝরে সবুজ গুটিতে ভরে উঠতে শুরু করেছে আম গাছগুলো। মটর দানা আমের ভারে কিছু কিছু গাছের ডাল মাটিতে নুয়ে পড়েছে। বাগান মালিকরা গুটি আমগুলোকে রোগ পোকামকরের হাত থেকে রক্ষা করতে পরিচর্যার কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন। এ সময় আমার সংবাদ প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা হয় উপজেলার আমচাষি সান্তুনু সরকারের তিনি বলেন, ‘এ বছর তার বাগানের প্রায় গাছেই প্রচুর পরিমাণে মুকুল এসেছিল সেই সকল মুকুল ঝরে আশানুরূপ গুটিও এসেছে। এখন পর্যন্ত তেমন কোনো প্রাকৃতিক বিপর্যয় ঘটেনি। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এ বছর আমের ফলন ভালো হবে বলে তিনি আশা করছেন।’ লালপুর উপজেলায় মোট ১ হাজার ৭২০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের আমবাগান রয়েছে। এই সকল জমি থেকে প্রায় ৮ হাজার ৬০০ মেট্রিক টন আম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্র নির্ধারণ করা হয়েছে। এখানকার চাষকৃত উল্লেখযোগ্য জাতের আম হলো- ‘ফজলি, নেংড়া, খেরসাপতি, গোপালভোগ, আম্রপালি, লকনা’ অন্যতম।লালপুর উপজেলা কৃষি অফিসার রাকিবুল ইসলাম এসব তথ্য জানিয়ে বলেন, ‘এ বছর উপজেলার প্রায় ৮০ শতাংশ গাছে আমের মুকুল এসেছে। কিছু কিছু গাছে গুটি এলেও আর কিছু দিন পরে সব গাছের মুকুল ঝরে মটর দানা আম দৃশ্যমান হবে। তবে আম মৌসুমি ফসল এই ফসলের ফলনটা নির্ভর করে আবহাওয়ার ওপরে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এখন পর্যন্ত কোনো প্রকার প্রাকৃতিক দুর্যোগ হয়নি, শেষ পর্যন্ত আবহাওয় অনুকূলে থাকলে আমের আশনুরূপ ফলন হবে বলে তিনি মনে করছেন।’
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত